1. admin@sathikkhabor.com : JbSknUo :
  2. 2015khohanctg@gmail.com : Khokan Mazumder : Khokan Mazumder
  3. baruasangita145@gmail.com : Sangita Barua : Sangita Barua
সরকারের চলমান কঠোর বিধিনিষেধেও উল্টো পথে "আবুরখীল ধুতাংঙ্গ কুঠিরের শীলানন্দ ভিক্ষু" - সঠিক খবর
শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ০৬:১১ পূর্বাহ্ন

সরকারের চলমান কঠোর বিধিনিষেধেও উল্টো পথে “আবুরখীল ধুতাংঙ্গ কুঠিরের শীলানন্দ ভিক্ষু”

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৫ মে, ২০২১
  • ২০২ Time View

জুয়েল বড়ুয়া, চট্টগ্রাম : সরকারের চলমান কঠোর বিধিনিষেধেও উল্টো পথে হাঁটছেন “আবুরখীল ধুতাংঙ্গ কুঠিরের শীলানন্দ ভিক্ষু”। গ্রামবাসীর অভিযোগ, করোনাকে গ্রামে ছড়িয়ে দিতে প্রবজ্যা প্রদানের নামে ভিন্ন জেলার লোক জমায়েত করে আয়োজন করেছে তথাকথিত এই মহাযজ্ঞ অনুষ্ঠান।

এদিকে, বিশ্বে করোনাভাইরাসের করোনার মৃত্যুর মিছিলে যোগ হচ্ছে লাখো মানুষ। দ্রুত ছাড়াচ্ছে ভাইরাসটির নতুন নতুন ধরণ ঠিক সেই মুহুর্তে রাউজান উপজেলার আবুরখীল গ্রামে প্রতিষ্ঠিত ধূতাঙ্গ কুঠিরের শীলানন্দ ভিক্ষু।

জানা গেছে, বুধবার (৬ এপ্রিল)সকালে বিভিন্ন জেলা থেকে শত শত ভিক্ষুর (শীলানন্দ) অনুসারী উপাসক এনে প্রবজ্যা প্রদানের নামে অনুষ্ঠান চলে। এতে গ্রামবাসীরা ক্ষীপ্ত হয়ে শীলানন্দ ভিক্ষুর এমন বিপদ মুখী কর্মকান্ডের জন্য বিক্ষোভ করেছেন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, স্থানীয় সরকারের আইনশুঙ্খলা রক্ষাকরা বাহিনী ও স্থানীয় সরকারের অনুমতি ছাড়া এ চলমান বিধিনিষেধের তোয়াক্কা না করে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন ধূতাঙ্গ কুঠিরে।

সরকার দেশে করোনার প্রকোপ ঠেকাতে লাগাতার কঠোর লকডাউন ঘোষণা করলেও মানছেন না ভিক্ষু শীলানন্দ। রাউজানের ছোট এই গ্রামকে করোনা মোকাবিলায় সরকারের সব প্রচেষ্টাকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে আরও বলেন, ‘কোভিড-১৯-এর কারণে সরকার ইতোমধ্যে যে পরিমাণ ক্ষতির শিকার হয়েছে—এভাবে গ্রামে গ্রামে ভিন্ন জেলার লোক এনে এসব অনুষ্ঠান চলতে থাকলে খুলে সংক্রমণ আবারও বেড়ে যাবে এতে কোন সন্দেহ নেই।

কোভিড-১৯ পরিস্থিতির মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে ভারতের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়াকে ইঙ্গিত করে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যারাই অবৈজ্ঞানিক পথে হেঁটেছেন বা অযৌক্তিক পন্থা অবলম্বন করেছেন তাদেরই চূড়ান্তভাবে ভুগতে হয়েছে।

বর্তমানে কাউকে বাইরে যেতে হলে পুলিশের কাছ থেকে ‘মুভমেন্ট পাস’ নিতে হচ্ছে। তবে স্বাস্থ্যকর্মী, সাংবাদিক এবং অন্যান্য জরুরি কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিদের মুভমেন্ট পাসের দরকার হচ্ছে না। সেখানে ভান্তের এমন অনুষ্ঠানের নামে লোক জমায়েত গ্রামবাসীকে আতঙ্কগ্রস্থ করে তুলেছে।

সরকারের চলমান কঠোর লকডাউন চলাকালে অন্যজেলার লোক নিয়ে শত শত লোক জমায়েত করে অনুষ্ঠান করা কতটুকু ঝুঁকিতে ফেলেছে জানতে চাইলে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবীর সোহাগ সঠিক খবরকে বলেন, অনুমতি না নিয়ে অতি উৎসায়িত হয়ে ভান্তে যে অনুষ্ঠানটি করেছেন তা তিনি অন্যায় করেছেন। এটা তিনি নিজ দায়িত্বে করেছেন। এ বয়াপারে স্থানীয় চেয়ারম্যানকে বলে দেয়া হয়েছে, যাতে এ ধরণের কোন অনুষ্ঠান অনুমতি ছাড়া যেন করতে না পারেন।

স্বাস্থ্য ঝুঁকির বিষয়ে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন ডাঃ ফজলে রাব্বি সঠিক খবরকে বলেন, এভাবে লোক জমায়েত করে অনুষ্ঠান করে পুরো গ্রামবাসীকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছেন। এতে মারাত্মক সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে। এ সময়ে এ ধরণের অনুষ্ঠান করা উচিত হয়নি বলে জানান সিভিল সার্জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, এপ্রিলের ৯ তারিখে করোনা পরীক্ষায় পজিটিভ শনাক্তের হার পৌঁছায় ২৪ শতাংশে।

এরপর সরকার ১৪ এপ্রিল থেকে সারাদেশে ‘কঠোর লকডাউনের’ ঘোষণা দিয়ে চলাচলের জন্য ‘মুভমেন্ট পাস’ চালু করে। যা পরে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়। এর পর দুই দফায় লকডাউন বাড়ানো হল।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019
Design Customized By:Our IT Provider